বুধবার, ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৭ খ্রীষ্টাব্দ | ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |
সর্বশেষ সংবাদ
জেরুজালেমকে ফিলিস্তিনের রাজধানী ঘোষণা করবে ওআইসি  » «   অভিশপ্ত চেয়ার: বসলেই মৃত্যু নিশ্চিত  » «   আমেরিকায় গিয়ে জঙ্গি হয়েছে আকায়েদ: পুলিশ  » «   সেনা চৌকিতে ধরা পড়া সেই ৭ ডিবি বিচারের মুখোমুখি  » «   মুসলমান কেন নির্যাতিত হচ্ছে এ ব্যাপারে রাসুলুল্লাহ সা. এর ভবিষ্যদ্বাণী  » «   সিলেটে যে অস্ত্রে কাবু রাজনীতিকরা  » «   আমেরিকায় বাংলাদেশিদের মধ্যে উদ্বেগ উৎকণ্ঠা  » «   ১৫৪ এমপি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত, এটা কি গণতন্ত্র: প্রশ্ন বি. চৌধুরীর  » «   শিবির তাড়িয়ে ওসমানী মেডিকেলে ছাত্রাবাসের কক্ষ দখলে নিল ছাত্রলীগ  » «   আমেরিকায় বন্ধ হচ্ছে পারিবারিক চেইন ভিসা!  » «   শৃঙ্খলা বিধিমালায় খর্ব হয়েছে বিচার বিভাগের স্বাধীনতা  » «   ফের বৃটেনের ভ্রমণ সতর্কতা, জনসমাগমে হামলার শঙ্কা  » «   ফাতাহ ও হামাসকে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান পুতিনের  » «   টঙ্গীতে প্রবাসী দুই ভাইকে ছুরিকাঘাতে হত্যা  » «   ‘তন্নতন্ন করেও জামায়াত-শিবিরকে ইসলামী ব্যাংকের অর্থায়নের প্রমাণ পাইনি’  » «  

নতুন ইন্তিফাদার ডাক দিলেন হানিয়া

hnnজেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী ঘোষণার প্রতিবাদে নতুন ইন্তিফাদা বা মুক্তি আন্দোলনের ডাক দিয়েছেন গাজার সশস্ত্র আন্দোলন হামাসের নেতা ইসমাইল হানিয়া। ট্রাম্পের এই স্বীকৃতিকে ফিলিস্তিনিদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা বলেও মন্তব্য করেছেন হানিয়া। এ ঘোষণার প্রতিবাদে ফিলিস্তিনিদের তিনি আগামীকাল শুক্রবার রাস্তায় নামার আহ্বান জানিয়েছেন। সেইসঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করতে মুসলিম দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

.

বৃহস্পতিবার গাজায় এক টেলিভিশন ভাষণে তিনি এ ঘোষণা দেন। হামাস নেতা বলেন, ট্রাম্পের এই ঘোষণার মাধ্যমে ইসরাইল-ফিলিস্তিনের মধ্যে শান্তি প্রতিষ্ঠা প্রচেষ্টার মৃত্যু ঘটেছে।

এর আগে বুধবার রাতে এক ভাষণে ট্রাম্প জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী ঘোষণা করেন এবং তেলআবিব থেকে মার্কিন দূতাবাস জেরুজালেমের সরিয়ে নেওয়ার ঘোষণা দেন।

যুক্তরাষ্ট্রের এই একতরফা ঘোষণার তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন বিশ্ব নেতারা। সেইসঙ্গে জাতিসংঘসহ বিভিন্ন সংগঠন ও সংস্থা এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে।

হানিয়া বলেন, ‘এই সিদ্ধান্ত শান্তি প্রক্রিয়াকে হত্যা করেছে, অসলো চুক্তিকে হত্যা করেছে, হত্যা করেছে মীমাংসার প্রচেষ্টাকে।’
তিনি বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের এই ঘোষণা একটি আগ্রাসন, বিশ্বে যে ফিলিস্তিন ও জেরুজালেম মুসলমান ও খ্রিস্টানদের বসবাসের সবচেয়ে ভাল স্থান, সেই স্থানের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা।’

বুধবার রাতে ট্রাম্পের ওই ঘোষণার পরপরই গাজা ও বেথেলহেমে বিক্ষোভে ফেটে পড়েন ফিলিস্তিনিরা। এ সময় তারা ট্রাম্পের কুশপুত্তলিকা পোড়ান। এ সময় ইসরাইলিদের সাথে তাদের সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটে। তবে এতে হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

ইসমাইল হানিয়া বলেন, ‘ইহুদি শত্রুদের বিরুদ্ধে ইন্তিফাদা শুরু করতে আমাদের কাজ করা উচিত। জেরুজালেম, গোটা জেরুজালেম আমাদের।’

এদিকে, ট্রাম্পের ওই ঘোষণার পর বৃহস্পতিবার তুরস্কের রাজধানী আঙ্কারা ও ইস্তাম্বুলে বিক্ষোভ করেছেন সাধারণ জনতা। এ সময় ফিলিস্তিনকে মুক্ত করার দাবি জানিয়ে স্লোগান দেন তারা।

অন্যদিকে, উদ্ভূত পরিস্থিতিতে আগামীকাল শুক্রবার বৈঠক আহ্বান করেছে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ। এ ছাড়া আরব লীগও বৈঠকের ডাক দিয়েছে।

উল্লেখ্য, এর আগে ফিলিস্তিনিরা দুই বার ইন্তিফাদার ডাক দিয়েছে। একটি হলো ১৯৮৭ সাল থেকে ১৯৯৩ সাল এবং অপরটি হলো ২০০০ সাল থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত। এতে দখলদার ইসরাইলের বিরুদ্ধে স্বতঃস্ফূর্ত আন্দোলনের নেমে পড়েন ফিলিস্তিনিরা।

আরপি

সংবাদটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ সংবাদ