মঙ্গলবার, ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ ফাল্গুন ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |
সর্বশেষ সংবাদ
সর্বস্তরে বাংলা ভাষা চালু করতে হবে : শিবির সভাপতি  » «   খালেদার বক্তব্য বিকৃত করে রায় দিয়েছেন আখতারুজ্জামান!  » «   একজন ভাষাসৈনিক গোলাম আজম এবং আমার ভাবনা  » «   আগামী বছর নতুন পদ্ধতিতে এসএসসি  » «   ধনীদের আরো বেশি কর দেয়া উচিত: বিল গেটস  » «   খালেদা ভোটের যোগ্যতা হারালে কিছু করার নেই: কাদের  » «   তারেকের স্ত্রী, কন্যার ব্রিটিশ নাগরিকত্বের আবেদনের খবর  » «   খালেদার জামিন আবেদনের আগেই কপি চান অ্যাটর্নি জেনারেল  » «   ব্যাংকে জালিয়াতির কোনো ঘটনায় ছাড় দেয়া হয়নি: তোফায়েল  » «   বাংলাদেশকে কেউ আর অবহেলার সাহস পায় না: প্রধানমন্ত্রী  » «   বাসের ধাক্কায় ৪ অটোযাত্রী নিহত  » «   ২১ গুণীজনকে একুশে পদক দিলেন প্রধানমন্ত্রী  » «   ভারতের দুর্ভাগ্য যে বিজেপি কেন্দ্রীয় সরকারে ক্ষমতায় আছে: মমতা  » «   খালেদা জিয়ার আপিল গ্রহণের শুনানি বৃহস্পতিবার  » «   দিল্লির দৃষ্টিতে খালেদা জিয়ার দণ্ড ও ঢাকার রাজনীতি  » «  

নতুন ইন্তিফাদার ডাক দিলেন হানিয়া

hnnজেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী ঘোষণার প্রতিবাদে নতুন ইন্তিফাদা বা মুক্তি আন্দোলনের ডাক দিয়েছেন গাজার সশস্ত্র আন্দোলন হামাসের নেতা ইসমাইল হানিয়া। ট্রাম্পের এই স্বীকৃতিকে ফিলিস্তিনিদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা বলেও মন্তব্য করেছেন হানিয়া। এ ঘোষণার প্রতিবাদে ফিলিস্তিনিদের তিনি আগামীকাল শুক্রবার রাস্তায় নামার আহ্বান জানিয়েছেন। সেইসঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করতে মুসলিম দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

.

বৃহস্পতিবার গাজায় এক টেলিভিশন ভাষণে তিনি এ ঘোষণা দেন। হামাস নেতা বলেন, ট্রাম্পের এই ঘোষণার মাধ্যমে ইসরাইল-ফিলিস্তিনের মধ্যে শান্তি প্রতিষ্ঠা প্রচেষ্টার মৃত্যু ঘটেছে।

এর আগে বুধবার রাতে এক ভাষণে ট্রাম্প জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী ঘোষণা করেন এবং তেলআবিব থেকে মার্কিন দূতাবাস জেরুজালেমের সরিয়ে নেওয়ার ঘোষণা দেন।

যুক্তরাষ্ট্রের এই একতরফা ঘোষণার তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন বিশ্ব নেতারা। সেইসঙ্গে জাতিসংঘসহ বিভিন্ন সংগঠন ও সংস্থা এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে।

হানিয়া বলেন, ‘এই সিদ্ধান্ত শান্তি প্রক্রিয়াকে হত্যা করেছে, অসলো চুক্তিকে হত্যা করেছে, হত্যা করেছে মীমাংসার প্রচেষ্টাকে।’
তিনি বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের এই ঘোষণা একটি আগ্রাসন, বিশ্বে যে ফিলিস্তিন ও জেরুজালেম মুসলমান ও খ্রিস্টানদের বসবাসের সবচেয়ে ভাল স্থান, সেই স্থানের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা।’

বুধবার রাতে ট্রাম্পের ওই ঘোষণার পরপরই গাজা ও বেথেলহেমে বিক্ষোভে ফেটে পড়েন ফিলিস্তিনিরা। এ সময় তারা ট্রাম্পের কুশপুত্তলিকা পোড়ান। এ সময় ইসরাইলিদের সাথে তাদের সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটে। তবে এতে হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

ইসমাইল হানিয়া বলেন, ‘ইহুদি শত্রুদের বিরুদ্ধে ইন্তিফাদা শুরু করতে আমাদের কাজ করা উচিত। জেরুজালেম, গোটা জেরুজালেম আমাদের।’

এদিকে, ট্রাম্পের ওই ঘোষণার পর বৃহস্পতিবার তুরস্কের রাজধানী আঙ্কারা ও ইস্তাম্বুলে বিক্ষোভ করেছেন সাধারণ জনতা। এ সময় ফিলিস্তিনকে মুক্ত করার দাবি জানিয়ে স্লোগান দেন তারা।

অন্যদিকে, উদ্ভূত পরিস্থিতিতে আগামীকাল শুক্রবার বৈঠক আহ্বান করেছে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ। এ ছাড়া আরব লীগও বৈঠকের ডাক দিয়েছে।

উল্লেখ্য, এর আগে ফিলিস্তিনিরা দুই বার ইন্তিফাদার ডাক দিয়েছে। একটি হলো ১৯৮৭ সাল থেকে ১৯৯৩ সাল এবং অপরটি হলো ২০০০ সাল থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত। এতে দখলদার ইসরাইলের বিরুদ্ধে স্বতঃস্ফূর্ত আন্দোলনের নেমে পড়েন ফিলিস্তিনিরা।

আরপি

সংবাদটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ সংবাদ