বুধবার, ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৭ খ্রীষ্টাব্দ | ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |
সর্বশেষ সংবাদ
বিচারকদের শৃঙ্খলাবিধির গেজেট ঃ বিচারকদের ওপর মাতাব্বরি করবেন আইনমন্ত্রী : ব্যারিস্টার মইনুল  » «   প্রবাসীর স্ত্রীর ঘরে অবাধে আসা-যাওয়া, তারপর যা ঘটল  » «   মাদক নিয়ে বিরোধে প্রবাসী দুই ভাই খুন: পুলিশ  » «   আগামী নির্বাচনে আমরা জয়লাভ করব: প্রধানমন্ত্রী  » «   অমানবিক: স্বামীকে খুন, সার্জারি করে প্রেমিককে স্বামীর চেহারা দিলেন স্ত্রী!  » «   সোনালী ব্যাংকের নামফলকে এখনো ‘ন্যাশনাল ব্যাঙ্ক অব পাকিস্তান’  » «   নারীদের মাঠে যেতে মানা করায় ইমামসহ তিনজন রিমান্ডে  » «   জেরুজালেম প্রশ্নে ওআইসি চুপ থাকতে পারে না: প্রেসিডেন্ট  » «   আওয়ামী লীগ ত্যাগ করলেন ২৬৯ জন  » «   নিরাপদ পৃথিবীর জন্য সম্মিলিত প্রচেষ্টা চান প্রধানমন্ত্রী  » «   জেরুজালেমকে রাজধানী পাওয়ার অধিকার কেবল ফিলিস্তিনিদের: সৌদি  » «   ‘আকায়েদ বাংলাদেশি নামের কলঙ্ক’  » «   জেরুজালেমকে ফিলিস্তিনের রাজধানী ঘোষণা করবে ওআইসি  » «   অভিশপ্ত চেয়ার: বসলেই মৃত্যু নিশ্চিত  » «   আমেরিকায় গিয়ে জঙ্গি হয়েছে আকায়েদ: পুলিশ  » «  

সবখানেই আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পরিচয়ে তুলে নিয়ে গুম, প্রতিকার কি ?

350117_1

শোকের মাস আগস্টে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পরিচয়ে কখনো বাসা থেকে, কখনো চলার পথ থেকে তুলে নেওয়া হয়েছে ব্যবসায়ী, ব্যাংকার, কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়পড়–য়া ছাত্রসহ প্রায় ১০ জনকে। এ কাণ্ডে নতুন করে যোগ হয়েছে গণমাধ্যমকর্মীও। তাদের মধ্যে ফিরে এসেছেন মাত্র দুজন। মাঝখানে বিরতির পর বছরের শেষ দিকে এসে আবারও শুরু হয়েছে এমন কা-। নিখোঁজের তালিকায় সর্বশেষ যোগ হয়েছে সাবেক এক কূটনীতিকের নাম।

নিখোঁজদের মধ্যে কদাচিৎ দু-একজন ফিরে এলেও তাদের মুখে কোনো রা নেই; কিছুই বলছেন না অপহরণকারী চক্রের বিষয়ে। গত সোমবার সন্ধ্যায় রাজধানীর ধানম-ির বাসা থেকে গাড়ি নিয়ে বের হন সাবেক রাষ্ট্রদূত মারুফ জামান। তিনি তার ছোট মেয়েকে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে আনতে যাচ্ছিলেন। বের হওয়ার কিছুক্ষণ তার বাসার ল্যান্ডফোনে তিনি কল করেন। গৃহপরিচারিকা ফোন ধরলে তিনি বলেন, ‘বাসায় কম্পিউটার নিতে কেউ একজন আসবেন।’ এর কিছুক্ষণ পর তিন সুঠামদেহী বাসায় প্রবেশ করে তার ল্যাপটপ, বাসার কম্পিউটারের সিপিইউ, ক্যামেরা, একটি স্মার্টফোন নিয়ে যান। তারা ঘরের ভেতর তল্লাশিও চালান। তবে কারা সেই তল্লাশিকারী, তা জানা যায়নি।

১৯৭৭ সালে সেনাবাহিনীতে সিগন্যাল কোরের ‘ষষ্ঠ শর্ট কোর্সে’ ক্যাপ্টেন হিসেবে যোগ দেওয়া মারুফ জামান ১৯৮২ সালে ফরেন সার্ভিসে যোগ দেন। এর পর লন্ডন, কাতার ও ভিয়েতনামস্থ দূতাবাসে কর্মরত ছিলেন তিনি। অতিরিক্ত সচিব পদমর্যাদায় থাকাকালে ২০১৩ সালে অবসর নেন তিনি। সর্বশেষ বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ইন্টারন্যাশনাল অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজে (বিআইএসএস) অতিরিক্ত মহাপরিচালক হিসেবে যুক্ত ছিলেন তিনি।

এরই মধ্যে গতকাল বৃহস্পতিবার এক মাস পূর্ণ হয়েছে বেসরকারি নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান অনুষদের সহকারী অধ্যাপক মোবাশ্বার হাসান সিজারের নিখোঁজ হওয়ার। তার সন্ধান না মেলায় হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়েছে পুরো পরিবার।

গত ৭ নভেম্বর বিকালে আগারগাঁওয়ের আইডিবি ভবনে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এটুআই প্রকল্পের একটি বৈঠক থেকে বেরিয়ে নিখোঁজ হন তিনি। মোবাশ্বারের বাবা মোতাহের হোসেন বলেছেন, ছেলে ফিরে আসবে এখনো এ অপেক্ষায় আছি।

মানবাধিকার সংগঠন আইন ও সালিশ কেন্দ্রের (আসক) নির্বাহী পরিচালক শীপা হাফিজা আমাদের সময়কে বলেন, অপহরণ-নিখোঁজের পর ফিরে আসা মানুষের সংখ্যাটি খুবই কম। দু-একজন ফিরে এলেও রহস্যজনকভাবে তারা মুখ খুলছেন না।

তিনি বলেন, অপহরণ-নিখোঁজদের বেলায় রাষ্ট্র আমাদের সঙ্গে কোনো রকম তথ্য আদান-প্রদানে ইচ্ছুক না। রাষ্ট্রের নীরবতা আমাদের শঙ্কিত করে। অথচ এ ধরনের ঘটনায় রাষ্ট্রেরই দায়িত্ব নিখোঁজদের খুঁজে বের করার।

গত ২৬ আগস্ট ধানম-ি থেকে নিখোঁজ হন কানাডার মন্ট্রিয়েলের ম্যাকগিল ইউনিভার্সিটির কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ছাত্র ইশরাক আহমেদ ফাহিম (২০)। ভার্সিটি থেকে ছুটি পেয়ে ১৬ জুন দেশে আসেন ইশরাক। ৩ সেপ্টেম্বর তার আবার কানাডায় ফেরার কথা ছিল।

ঘটনার পর পরিবারের সদস্যরা বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা, থানাপুলিশসহ সরকারের নানা পর্যায়ে চেষ্টা করেছেন। কিন্তু কেউ বা কোনো সংস্থা সন্ধান দিতে পারেনি।

ইশরাকের চাচা ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিন আহমেদ আমাদের সময়কে বলেন, ভাতিজাকে ফিরে পেতে এমন কোনো চেষ্টা নেই, যা আমরা করিনি। ও কী এমন অপরাধ করেছে যে, তাকে তুলে নিতে হবে। অজ্ঞাত অপহরণকারীদের প্রতি তার আকুতিÑ ‘যে কোনো মূল্যে ইশরাককে ফিরিয়ে দিন।’

ইশরাকের নিখোঁজ হওয়ার চার দিন আগে বনানী ফ্লাইওভারের নিচে সাদা পোশাকধারী ব্যক্তিরা বিএনপি নেতা ও এবিএন গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ সাদাত আহমেদকে একটি মাইক্রোবাসে তুলে নেন। এখনো তার খোঁজ মেলেনি। অপহৃতের পরিবারের বক্তব্য, তার সঙ্গে কারো বিরোধ নেই। তা হলে কেন তাকে তুলে নেওয়া হবে।

গত ২৭ আগস্ট রাতে রাজধানীর নয়াপল্টন থেকে সাভারের আমিনবাজারের বাসভবনের উদ্দেশে রওনা হওয়ার পর নিখোঁজ হন বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০দলীয় জোটের শরিক দল বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির মহাসচিব এমএম আমিনুর রহমান। গতকাল শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত তার খোঁজ মেলেনি।

১০ অক্টোবর নিখোঁজ হন অনলাইন নিউজ পোর্টাল পূর্বপশ্চিমবিডি ডটকমের স্টাফ রিপোর্টার উৎপল দাস। এখনো তার কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি।

২৭ আগস্ট ৭২ গুলশান অ্যাভিনিউ ইউনিয়ন ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ের সামনে থেকে মাইক্রোবাসে তুলে নেওয়া হয় আরএমএম গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) অনিরুদ্ধ রায়কে। অনিরুদ্ধকে ফিরে পেতে অনেক কাঠখড় পোহান তার পরিবারের সদস্য, স্বজন ও বন্ধুরা। ৮১ দিন পর গত ১৭ নভেম্বর রহস্যজনকভাবে ফিরে আসেন অনিরুদ্ধ।

ফিরে এসে তিনি বলেন, তার ব্যবসায়িক অংশীদার মহিউদ্দিন আহমেদ মাহিন গং কোম্পানির ১৫০ কোটি টাকার অধিক মূল্যের সম্পতি হস্তগত করার জন্য হেন কোনো কাজ নেই, যা করেনি। অপহরণে তাদের দায়ী করা হলেও অপহরণকারীরা পেশাদার তাও বলেছেন অনিরুদ্ধ কুমার রায়।

অনিরুদ্ধের মতো ফিরে এসেছেন গত ২৩ আগস্ট পুরানা পল্টনের ‘খানা বাসমতী’ রেস্তোরাঁর সামনে থেকে পুলিশ পরিচয়ে অপহৃত আইএফআইসি ব্যাংক কর্মকর্তা শামীম আহমেদ।

পুলিশ সদর দপ্তরের হিসাবে, ২০১৬ সালে রাজধানীর বিভিন্ন স্থান থেকে অপহৃত হয়েছেন মোট ১০৩ জন। আর চলতি বছরের আগস্ট পর্যন্ত অপহরণের ঘটনায় বিভিন্ন থানায় মামলা হয়েছে ৭২টি। এ হিসাব ভুক্তভোগীদের মধ্যে যারা সংশ্লিষ্ট থানায় অভিযোগ করেছেন, তাদের সেই অভিযোগের ভিত্তিতে। কিন্তু অপহরণকা-ের বাস্তবচিত্র আরও ভয়াবহ বলে মনে করছেন অপরাধ বিশেষজ্ঞ ও মানবাধিকারকর্মীরা। নানা ভয়ভীতির কারণে অনেক ভুক্তভোগী বা তাদের স্বজনরা অনেক ক্ষেত্রে অভিযোগও জানাতে পারছেন না।

উৎসঃ   আামদের সময়
সংবাদটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ সংবাদ