শুক্রবার, ১৯ জানুয়ারি, ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ মাঘ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |
সর্বশেষ সংবাদ
নারী ধূমপায়ীদের তালিকায় বাংলাদেশ এখন শীর্ষে  » «   এবার বনানী থেকে শিক্ষা কর্মকর্তা নিখোঁজ  » «   মানুষ অবৈধ শাসকগোষ্ঠীর নির্মম শিকলে বন্দী: খালেদা জিয়া  » «   আসামে বাংলাভাষী বিতাড়নের প্রতিবাদে বিক্ষোভ  » «   ইসরাইলী সেনার গুলিতে ১ ফিলিস্তিনী নিহত  » «   তীব্র সমালোচনার মুখে ছবিগুলো সরিয়ে নিলো ভারতীয় দূতাবাস  » «   নারায়ণগঞ্জে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে বঙ্গবন্ধু সড়কে হকাররা  » «   আমরা লজ্জা পাচ্ছি, তারা কি পাচ্ছেন একটুও: আসিফ নজরুল  » «   সিলেটে অর্থমন্ত্রীর গাড়ি চাপায় আহত ২০  » «   জিয়ার মাজারের খালেদা জিয়ার শ্রদ্ধা নিবেদন  » «   সিলেট-লন্ডন ফ্লাইট চালু করতে ৪৫০ কোটি টাকার প্রকল্প  » «   মেয়র আইভী সিসিইউতে  » «   সুষ্ঠু নির্বাচন হলে ৮০ ভাগ মানুষ বিএনপিকে ভোট দিবে: মির্জা ফখরুল  » «   মুসলমানদের সঙ্গে প্রতারণা করছে সৌদি আরব: খামেনি  » «   বাবার লাশ নিয়ে এক তরুণের বাড়ি যাওয়ার মর্মান্তিক বর্ণনা  » «  

ক্যান্সার প্রতিরোধে কি খাবেন

Vegetable-2

খাবার দাবারের ধরন, ব্যায়াম না করার অভ্যাস আর শরীরের বাড়তি ওজন শতকরা প্রায় ৪০ ভাগ ক্ষেত্রে এসবই ক্যান্সারের কারণ। আবার সব ধরনের ক্যন্সারের প্রায় ৩০ শতাংশই খাবারের সাথে সম্পর্কযুক্ত। খাবারের ধরন ক্যন্সারের একটা রিষ্ক ফ্যাক্টর। খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তন করে ক্যান্সার প্রতিরোধ করা সম্ভব। অতএব, খাবার হচ্ছে ক্যান্সারের পরিবর্তনযোগ্য রিষ্ক ফ্যাক্টর। খাবারে বেশি বেশি ফলমূল, শাক সবজি থাকলে কোন কোন ক্যান্সার ও ক্রনিক অসুখ কম হয়। এসব খাবারে আছে ক্যান্সার প্রতিরোধী কিছু উপাদান। ক্যান্সার প্রতিরোধী কয়েকটি খাবারের উদাহরণ হচ্ছে:
টমেটো : টমেটোতে আছে প্রচুর লাইকোপিন নামক শক্তিশালী এন্টি-অক্সিডেন্ট। টমেটো সস্, টমেটো পেস্ট বা টমেটো ক্যাচাপ-লাইকোপিনের ঘন উৎস। লাইকোপিন পুরুষদের প্রস্টেট আর মহিলাদের জরায়ুর মুখ ও ডিম্বাশয়ের ক্যান্সার হবার সম্ভাবনা কমাতে সহায়ক। এ ছাড়া বৃহদন্ত্র, মলাশয়, পাকস্থলি, গ্রাসনালী ইত্যাদি অঙ্গের ক্যান্সার প্রতিরোধেও টমেটো সহায়ক বলে বিভিন্ন গবেষণায় প্রমাণ। গাজর, পাকা পেঁপে, মিষ্টি আলু, লাল শাক এগুলো শক্তিশালী এন্টি-অক্সিডেন্ট ‘বিটা ক্যারোটিনের’ গুরুত্বপূর্ণ উৎস। এসব খাবার নিয়মিত খেলে অনেক ধরনের ক্যান্সার হবার সম্ভাবনা কমে।
সীম: সীমের ফাইটোকেমিক্যাল ‘আইসোফ্ল্যাভোন’ প্রস্টেট ক্যান্সার প্রতিরোধে কার্যকর বলে ধারণা করা হয়।
পালং শাক : সবুজ শাকের মধ্যে পালং শাক সেরা। এতে আছে প্রচুর পরিমাণে লুটিন ও ভিটামিন ই। পালং শাকের এন্টি-অক্সিডেন্ট লিভার, ডিম্বাশয়, কোলন ও প্রস্টেটের ক্যান্সার প্রতিরোধে কার্যকর।
রসুন : গ্রাসনালী, পাকস্থলি ও স্তনের ক্যান্সার কমাতে রসুন কার্যকর। রান্না করার মিনিট দশেক আগে কুচি কুচি করে কেটে রেখে দিলে রসুনের ক্যান্সার প্রতিরোধ করার ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়।
আনারস : ভিটামিন সি একটি শক্তিশালী এন্টি-অক্সিডেন্ট। আনারস ভিটামিন সি-এর একটি গুরুত্বপূর্ণ উৎস। এ ছাড়া আনারসে আছে ‘ব্রোমেলেইন’ নামের এক এনজাইম। এটি স্তন ও ফুসফুসের ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়ক হতে পারে।
আপেল : আপেলে আছে ‘কোয়ার্সেটিন’ নামের এক এন্টি-অক্সিডেন্ট, যা কমিয়ে দেয় পাকস্থলি ও কোলন ক্যান্সারের সম্ভাবনা। এটি প্রস্টেট ক্যান্সারের কোষের বৃদ্ধিও কমিয়ে দেয়।
চা : চায়ে আছে শক্তিশালী এন্টি-অক্সিডেন্ট ‘ইজিসিজি’। এটি পাকস্থলি, লিভার ও ত্বকের ক্যান্সার প্রতিরোধে কার্যকর। কালো চায়ের চেয়ে সবুজ চাই বেশি ভালো। সবুজ চায়ে এন্টি-অক্সিডেন্টের পরিমাণ বেশি। আমাদের হাতের কাছেই আছে প্রচুর ফলমূল ও শাক সবজি। এসবের বিভিন্ন এন্টি-অক্সিডেন্ট ও ফাইটোকেমিক্যাল আমাদের জন্য অত্যন্ত জরুরি। ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়ক। স্বাস্থ্যকর দীর্ঘ জীবনের জন্য এবং ক্যান্সার প্রতিরোধের আশায় আমাদের দৈনন্দিন খাদ্য তালিকায় বিভিন্ন ধরনের ফলমূল ও শাকসবজি থাকা একান্ত আবশ্যক। আর চাও পান করা উচিত দৈনিক কয়েক কাপ।
-অধ্যাপক ডা. মো: শহীদুল্লাহ্
বিভাগীয় প্রধান
কমিউনিটি মেডিসিন বিভাগ
কমিউনিটি বেজড মেডিকেল কলেজ, ময়মনসিংহ।

সংবাদটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ সংবাদ