শুক্রবার, ১৯ জানুয়ারি, ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ মাঘ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |
সর্বশেষ সংবাদ
নারী ধূমপায়ীদের তালিকায় বাংলাদেশ এখন শীর্ষে  » «   এবার বনানী থেকে শিক্ষা কর্মকর্তা নিখোঁজ  » «   মানুষ অবৈধ শাসকগোষ্ঠীর নির্মম শিকলে বন্দী: খালেদা জিয়া  » «   আসামে বাংলাভাষী বিতাড়নের প্রতিবাদে বিক্ষোভ  » «   ইসরাইলী সেনার গুলিতে ১ ফিলিস্তিনী নিহত  » «   তীব্র সমালোচনার মুখে ছবিগুলো সরিয়ে নিলো ভারতীয় দূতাবাস  » «   নারায়ণগঞ্জে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে বঙ্গবন্ধু সড়কে হকাররা  » «   আমরা লজ্জা পাচ্ছি, তারা কি পাচ্ছেন একটুও: আসিফ নজরুল  » «   সিলেটে অর্থমন্ত্রীর গাড়ি চাপায় আহত ২০  » «   জিয়ার মাজারের খালেদা জিয়ার শ্রদ্ধা নিবেদন  » «   সিলেট-লন্ডন ফ্লাইট চালু করতে ৪৫০ কোটি টাকার প্রকল্প  » «   মেয়র আইভী সিসিইউতে  » «   সুষ্ঠু নির্বাচন হলে ৮০ ভাগ মানুষ বিএনপিকে ভোট দিবে: মির্জা ফখরুল  » «   মুসলমানদের সঙ্গে প্রতারণা করছে সৌদি আরব: খামেনি  » «   বাবার লাশ নিয়ে এক তরুণের বাড়ি যাওয়ার মর্মান্তিক বর্ণনা  » «  

সংবিধান লঙ্ঘন করে সংসদ অধিবেশন!

 356627_1

সরকারের বেআইনি কর্মকাণ্ডের আছর গিয়ে পড়েছে এবার মহান জাতীয় সংসদে। বিধি-বিধান লঙ্ঘন করেই এখন চালাচ্ছে একতরফা সংসদের কার্যক্রম। নির্বাচনে যেমন ভোট লাগেনি ঠিক তেমনি সংসদ অধিবেশন শুরু করতেও এখন আর কোরামের প্রয়োজন হয় না। এমনি এক নজিরবিহীন ঘটনা বৃহস্পতিবার ঘটেছে বাংলাদেশের জাতীয় সংসদে।

বাংলাদেশের ইতিহাসে এক নজিরবিহীন নির্বাচন ছিল ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির একতরফা সংসদ নির্বাচন। যে নির্বাচনে ১৫৩ জন সংসদ সদস্য বিনাভোটে নির্বাচিত হয়ে সংসদে এসেছে। একতরফা সংসদ নির্বাচন নিয়ে সমালোচনা-বিতর্ক এখনও অব্যাহত আছে।

একদলীয় নির্বাচনের পর সরকার গঠন করে সংসদ তারা একদলীয়ভাবেই পরিচালিত করে আসছে। জাতীয় পার্টি কাগজে-কলমে বিরোধীদল থাকলেও কার্যত তারাও সরকারি দলের অন্তর্ভূক্ত। এমনকি জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এরশাদও তার দলকে বিরোধীদল মনে করেন না। আর একদলীয় এ সংসদে দেশ, জনগণ, মানুষের মৌলিক অধিকার, শিক্ষা, মানবাধিকার, নাগরিকদের জানমালের নিরাপত্তাসহ জনগণের কল্যাণমূলক কোনো বিষয়ে কখনো আলোচনা হয় না। অধিবেশনের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত রাষ্ট্রের শত শত কোটি টাকা খরচ করে শুধু বিএনপি-জামায়াতকে গালিগালাজ করে থাকে।

একদলীয় সরকারের একদলীয় সংসদ বৃহস্পতিবার আরেক নতুন দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। সংবিধান অনুযায়ী, ন্যূনতম ৬০ জন সদস্য উপস্থিত না থাকলে সংসদের কোরাম হয় না। কোরাম না থাকলে বৈঠক স্থগিত বা মুলতবি করতে হয়। জাতীয় সংসদের কার্যপ্রণালি বিধিতে বলা আছে, কোরাম-সংকটের জন্য অধিবেশনে স্পিকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করলে কোরাম হওয়ার জন্য তিনি পাঁচ মিনিট ধরে ঘণ্টা বাজানোর নির্দেশ দেবেন। এর মধ্যে কোরাম না হলে স্পিকার অধিবেশন মুলতবি রাখবেন।

কিন্তু, বৃহস্পতিবার সংবিধান লঙ্ঘন করে ৬০ জনের কমসংখ্যক সদস্য নিয়েও অধিবেশন চলেছে। পরে মান-ইজ্জত বাঁচাতে ডেপুটি স্পীকার ফজলে রাব্বি মিয়া একজনের বক্তব্য না শুনেই সংসদের বৈঠক মুলতবি ঘোষণা করেন।

এনিয়ে এখন আবার নতুন বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে। আইনজ্ঞরা বলছেন, কোরাম ছাড়া অধিবেশন শুরু করা মানে সংবিধান লঙ্ঘন করা। যে সংসদ রাষ্ট্রের সংবিধানকে সমুন্নত রাখে সেই সংসদে সংবিধান লঙ্ঘনের ঘটনা নজিরবিহীন। তারা বলছেন, এ সরকারের পক্ষে সবই সম্ভব। বেআইনি সরকার সব কিছুই এখন চালাচ্ছে বেআইনিভাবে।

উৎসঃ   অ্যানালাইসিস বিডি
সংবাদটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ সংবাদ