শুক্রবার, ১৯ জানুয়ারি, ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ মাঘ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |
সর্বশেষ সংবাদ
নারী ধূমপায়ীদের তালিকায় বাংলাদেশ এখন শীর্ষে  » «   এবার বনানী থেকে শিক্ষা কর্মকর্তা নিখোঁজ  » «   মানুষ অবৈধ শাসকগোষ্ঠীর নির্মম শিকলে বন্দী: খালেদা জিয়া  » «   আসামে বাংলাভাষী বিতাড়নের প্রতিবাদে বিক্ষোভ  » «   ইসরাইলী সেনার গুলিতে ১ ফিলিস্তিনী নিহত  » «   তীব্র সমালোচনার মুখে ছবিগুলো সরিয়ে নিলো ভারতীয় দূতাবাস  » «   নারায়ণগঞ্জে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে বঙ্গবন্ধু সড়কে হকাররা  » «   আমরা লজ্জা পাচ্ছি, তারা কি পাচ্ছেন একটুও: আসিফ নজরুল  » «   সিলেটে অর্থমন্ত্রীর গাড়ি চাপায় আহত ২০  » «   জিয়ার মাজারের খালেদা জিয়ার শ্রদ্ধা নিবেদন  » «   সিলেট-লন্ডন ফ্লাইট চালু করতে ৪৫০ কোটি টাকার প্রকল্প  » «   মেয়র আইভী সিসিইউতে  » «   সুষ্ঠু নির্বাচন হলে ৮০ ভাগ মানুষ বিএনপিকে ভোট দিবে: মির্জা ফখরুল  » «   মুসলমানদের সঙ্গে প্রতারণা করছে সৌদি আরব: খামেনি  » «   বাবার লাশ নিয়ে এক তরুণের বাড়ি যাওয়ার মর্মান্তিক বর্ণনা  » «  

‘মিয়ানমার সেনাবাহিনীর হাতে নিহত রোহিঙ্গারা জঙ্গি ছিল না’

356774_1মিয়ানমার সেনাবাহিনীর হত্যাকাণ্ডের শিকার হওয়া ইনদিন গ্রামের ১০ রোহিঙ্গা জঙ্গি ছিল না; দাবি করেছে গ্রামবাসী। তাদের দাবি, ওই ১০ জনকে ঠাণ্ডা মাথায় খুন করা হয়েছে৷ বার্তা সংস্থা এএফপিকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তাঁরা এ তথ্য দেন৷ গেল বুধবারের আগ পর্যন্ত মিয়ানমার সেনারা মানবাধিকার লঙ্ঘনের সব অভিযোগ অস্বীকার করে আসছিলো৷ বুধবার দেশটির সেনাপ্রধান প্রথমবারের মতো ১০ রোহিঙ্গা হত্যাকাণ্ডের স্বীকারোক্তি দেন।

সেনাপ্রধানের অফিশিয়াল ফেসবুক পোস্ট থেকে ইনদিন গ্রামের গণকবরের সত্যতা স্বীকার করে বলা হয় যে, কয়েকজন গ্রামবাসী ও সেনাসদস্য মিলে ১০ জন রোহিঙ্গাকে হত্যা করেছে৷ তবে নিহতদের ‘বাঙালি জঙ্গি’ বলে আখ্যায়িত করা হয়৷ ওই ঘটনার বর্ণনায় সেনা প্রধান দাবি করেন, সেপ্টেম্বরের ১ তারিখে ওই গ্রামে স্থানীয় এক ব্যক্তিকে হত্যার পর গ্রামবাসী ও নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে জড়ায় ‘রোহিঙ্গা বিদ্রোহীরা’। ওই সংঘর্ষের পর ধরা পড়ে দশ ‘বাঙালি সন্ত্রাসী’। তবে টেকনাফের বালুখালি ক্যাম্পে মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশের ইনদিন গ্রাম থেকে পালিয়ে আসা ৩০ বছর বয়সী নারী মারজান এএফপিকে বলেন ভিন্ন কথা। তিনি দাবি করেন, স্থানীয় রাখাইন সম্প্রদায়ের একদল লোক সেনাবাহিনীর সহায়তায় তাঁদের গ্রামে আক্রমণ করে৷

মিয়ানমারের সেনাপ্রধান দাবি করেন, ধরা পড়া ‘বাঙালি সন্ত্রাসীদের’ নিয়ে যাওয়া হয় কাছের পুলিশ স্টেশনে। রাতে তাদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য কাছের একটি স্কুলে নিয়ে যাওয়া হয়। পরের দিন গ্রামবাসী তলোয়ার নিয়ে ওই ‘সন্ত্রাসীদের’ আক্রমণ করে। চার নিরাপত্তা কর্মী তাদের গুলি করে । মৃত্যু নিশ্চিত হওয়ার পর তাদের মরদেহ মাটি চাপা দেয় সেনারা। ২০ ডিসেম্বর তাদের মরদেহ পাওয়া যায়। তবে মারজান এএফপিকে জানান, ‘‘তারা ১০ থেকে ১৫ জন রোহিঙ্গা পুরুষকে নিয়ে বৈঠক করার কথা বলে নিয়ে যায়৷ পরে তাঁদের আর খুঁজে পাওয়া যায়নি৷” মারজান জানান, তাঁর স্বামীও সেই দলে ছিলেন৷ পরে অন্যদের কাছ থেকে জানতে পারেন যে, তাঁর স্বামীকে হত্যা করা হয়েছে৷ ‘‘ওঁরা আমাকে বললেন যে, আমার স্বামীর লাশ অন্যদের সঙ্গে একটি গণকবরে পাওয়া গেছে৷”

হোসেইন আহাম্মাদ নামের ইনদিন গ্রামের আরেক যুবক এএফপিকে জানান যে, যাঁদের হত্যা করা হয়েছে তাঁরা সবাই সাধারণ রোহিঙ্গা গ্রামবাসী ছিলেন৷ ‘হত্যাকাণ্ডের শিকার রোহিঙ্গারা ছিলেন জেলে-কৃষক-করাতি-কেরানী। কোনও আন্দোলনেও তারা জড়িত ছিল না। কেবলই বার্মিজ সেনাবাহিনীর ক্রোধের শিকার তারা’।

গত ২৫ আগস্ট রাখাইনের কয়েকটি নিরাপত্তা চৌকিতে হামলার পর পূর্ব-পরিকল্পিত ও কাঠামোবদ্ধ সহিংসতা জোরালো করে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। হত্যা-ধর্ষণসহ বিভিন্ন ধারার সহিংসতা ও নিপীড়ন থেকে বাঁচতে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ছয় লাখেরও বেশি মানুষ। বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠন এ ঘটনায় খুঁজে পেয়েছে মানবতাবিরোধী অপরাধের আলামত। জাতিসংঘের মানবাধিকার কমিশন এই ঘটনাকে জাতিগত নিধনযজ্ঞের ‘পাঠ্যপুস্তকীয় উদাহরণ’ আখ্যা দিয়েছে। রাখাইন সহিংসতাকে জাতিগত নিধন আখ্যা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন দেশ। তবে এইসব অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। দেশটির রাষ্ট্রীয় উপদেষ্টা অং সান সু চি’ও রোহিঙ্গাদের পক্ষে কোনও ইতিবাচক ভূমিকা নিতে সক্ষম হননি। এ নিয়ে বিশ্বজুড়ে বিতর্কিত হয়েছেন তিনি। হারিয়েছেন বহু সম্মাননা।

শীর্ষনিউজ

সংবাদটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ সংবাদ