রবিবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ ফাল্গুন ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |
সর্বশেষ সংবাদ
বাংলাদেশে অবাধ নির্বাচনের প্রত্যাশা জাতিসংঘের  » «   এবার উত্তরসহ প্রশ্নফাঁস  » «   জাবিতে ছাত্রলীগের নির্যাতনের শিকার ছাত্রদল নেতার অবস্থা আশঙ্কাজনক  » «   যুক্তরাজ্যে দেশজুড়ে পালিত হবে ‘ভিজিট মাই মস্ক’  » «   পুলিশকে গুলি: জড়িতরা যুবলীগ-ছাত্রলীগের  » «   মাধবপুরে হত্যা মামলার আসামি গ্রেপ্তার  » «   ড্র করে সিলেটের প্রথম ম্যাচ স্মরণীয় করতে চান মাহমুদউল্লাহ  » «   বিএনপি কেন গণস্বাক্ষর-মানববন্ধনের পথে?  » «   সিলেটের কানাইঘাটে গৃহবধূ খুন, আটক ২  » «   ওবায়দুল কাদেরের বিশ্রাম নেওয়ার সময় এসেছে : রিজভী  » «   দিনবদলের মার্কাই হচ্ছে এরশাদের লাঙল: বাবলা  » «   ফের আলোচনায় ‘কাউয়া’  » «   সৌদি জোটের অবরোধ ‘নিষ্ফল’ : কাতারের আমির  » «   নাইজেরিয়ায় আত্মঘাতী হামলায় নিহত ১৮  » «   ‘খালেদা জিয়ার জনপ্রিয়তা এখন আকাশচুম্বী’  » «  

৭১ আরোহী নিয়ে বিধ্বস্ত রুশ বিমান কেউ বেঁচে নেই

rubরাশিয়া এয়ারলাইনসের একটি উড়োজাহাজ ৭১ জন আরোহী নিয়ে বিধ্বস্ত হয়েছে। রাশিয়ার মস্কো বিমানবন্দর থেকে উড্ডয়নের কিছুক্ষণ পর সারাতভ এয়ারলাইনসের ওই উড়োজাহাজটি ৮০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বে আরগুনোভোর কাছে বিধ্বস্ত হয়।

দেশটির কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, উড়োজাহাজটির আরোহীদের সবাই নিহত হয়েছেন।

বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, অভ্যন্তরীণ ওই ফ্লাইটটির গন্তব্য ছিল উরালের ওরস্ক শহর। কিন্তু উড্ডয়নের কিছুক্ষণ পর মস্কো থেকে ৮০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বে আরগুনোভোর কাছে উড়োজাহাজটি বিধ্বস্ত হয়েছে। রুশ গণমাধ্যমেও এ ধরনের খবরে প্রকাশ করা হয়েছে।

রুশ বার্তা সংস্থাগুলোর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, উড়োজাহাজটিতে ৬৫ জন যাত্রী ও ৬ জন ক্রু ছিলেন। আরগুনোভোর বিপুল এলাকাজুড়ে উড়োজাহাজটির ধ্বংসাবশেষ ছড়িয়ে পড়ে। মস্কোর দোমোদেদোভো বিমানবন্দর ত্যাগ করার দুই মিনিট পরই রাডার থেকে উড়োজাহাজটি নিখোঁজ হয়।

তদন্তকারীদের উদ্ধৃতি দিয়ে রাশিয়ার একটি অনলাইন সংবাদমাধ্যমে বলা হয়েছে, উড়োজাহাজের পাইলট যান্ত্রিক ত্রুটির কথা জানিয়ে জরুরি অবতরণের অনুরোধ জানিয়েছিলেন।

এ ঘটনায় রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন নিহত ব্যক্তিদের পরিবারের সদস্যদের প্রতি শোক জানিয়েছেন এবং দুর্ঘটনার কারণ জানতে তদন্তের ঘোষণা দিয়েছেন।

এক বছরের বেশি সময় পর বিশ্বে এই প্রথম বাণিজ্যিক যাত্রীবাহী কোনো উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত হলো। ২০১৭ সালে আকাশপথ ছিল সবচেয়ে নিরাপদ। ওই বছর কোনো যাত্রীবাহী উড়োজাহাজ দুর্ঘটনার শিকার হয়নি।

এ ঘটনায় রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। এ দুর্ঘটনার কারণ একটি উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ সংবাদ